Header Ads Widget

Live

6/recent/ticker-posts

রাজ্য সভায় পশ্চিমবঙ্গে CAA, NRC বিরুদ্ধে আইন পাস | মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বললেন, আমাদের রাজ্যে CAA, NRC আর NPR করার অনুমতি দেবো না | West Bengal assembly passes anti-CAA resolution |

সোমবার পশ্চিমবঙ্গ চতুর্থ রাজ্যে পরিণত হয়েছে যার সংসদ কর্তৃক নাগরিকত্ব সংশোধন আইনের বিরুদ্ধে একটি প্রস্তাব পাস হয়েছে। বাম-শাসিত কেরালা এবং কংগ্রেস-নেতৃত্বাধীন পাঞ্জাব ও রাজস্থান ইতিমধ্যে এই আইনটি প্রত্যাহারের দাবিতে একই ধরনের প্রস্তাব পাস করেছে যা প্রতিবাদের জন্ম দিয়েছে।
সোমবার পশ্চিমবঙ্গ চতুর্থ রাজ্যে পরিণত হয়েছে যার সংসদ কর্তৃক নাগরিকত্ব সংশোধন আইনের বিরুদ্ধে একটি প্রস্তাব পাস হয়েছে। বাম-শাসিত কেরালা এবং কংগ্রেস-নেতৃত্বাধীন পাঞ্জাব ও রাজস্থান ইতিমধ্যে এই আইনটি প্রত্যাহারের দাবিতে একই ধরনের প্রস্তাব পাস করেছে যা প্রতিবাদের জন্ম দিয়েছে।
তৃতীয় পক্ষের চিত্র রেফারেন্স
রাজ্য বিধানসভায় সোমবার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোাধ্যায় বলেছেন, আমাদের রাজ্যে CAA, NRC আর NPR করার অনুমতি দেবো না। মানুষ আতঙ্কে আছেন। তিনি বলেন, এই লড়াই শুধু সংখ্যালঘুদের না। আমার হিন্দু ভাই-বোনেদের কাছে আমি কৃতজ্ঞ, ওরা সামনে থেকে এই লড়াইটা লড়ছেন।
মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় আরও বলেছেন-
 আমরা শান্তিপূর্ণ আন্দোলন করবো। CAA অনুযায়ী আপনি বিদেশি চিহ্নিত হবেন। এটা একটা ভয়ঙ্কর খেলা। মানুষকে ধীরে ধীরে মৃত্যুর দিকে ঠেলে নিয়ে যাবে। তাই ওদের (BJP) ফাঁদে পা দেবেন না।
ইতিমধ্যে তাঁকে পাকিস্তানের "ব্র্যান্ড অ্যাম্বাসেডর" তকমা দিয়েছে BJP। সেই তকমাকে কটাক্ষের সুরে বিঁধে মুখ্যমন্ত্রী বলেছেন-
ওরা সবসময় পাকিস্তান নিয়ে কথা বলে, আর ভারত নিয়ে কম ভাবে।
মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেছিলেন, নাগরিকত্ব সংশোধন আইনটি "সংবিধান ও মানবতার বিরুদ্ধে"

গত ১১ ডিসেম্বর আইনে পরিণত হয় CAA বিল। দেশের একাধিক শহরে ছড়িয়েছে পড়েছে আন্দোলন। তার সঙ্গে পাল্লা দিয়ে চলেছে ছাত্র-আন্দোলন। এই আন্দোলন সবচেয়ে ব্যাপক আকার নিয়েছিল জামিয়া মিলিয়া, আলিগড় মুসলিম বিশ্ববিদ্যালয় ও JNU-তে। সেই আন্দোলন দমনে পুলিশি সক্রিয়তার সমালোচনা করেছেন বিশিষ্টরা।
সোমবার কেন্দ্রীয় আইনমন্ত্রী রবিশঙ্কর প্রসাদ দিল্লির শাহীনবাগ এলাকায় নাগরিকত্ব বিরোধী সংশোধন আইনের প্রতিবাদকারীদের বিক্ষোভ করে বলেছিলেন যে এই বিক্ষোভটি যারা ভারত বিভক্ত করতে চায় তাদের জন্য একটি প্রচ্ছদ ছিল।সংবাদ সম্মেলনে রবিশঙ্কর প্রসাদ বলেন-
শাহীন বাঘ আর কোনও অঞ্চল নয় - এটি এমন একটি ধারণা যেখানে দেশটি বিভক্ত করতে চায় এমন লোকদের জন্য ভারতীয় পতাকা ব্যবহার করা হচ্ছে