অর্থ অনুযায়ী বাক্য কত প্রকার ও কি কি ? সংজ্ঞা ও উদাহরণসহ উত্তর

অর্থ অনুযায়ী বাক্যের শ্রেণীবিভাগ :

অর্থ অনুযায়ী বাক্যকে সাতটি শ্রেণীতে ভাগ করা যায়, যথা-
  1. নির্দেশক বাক্য
  2. প্রশ্নবোধক বাক্য
  3. অনুজ্ঞাবাচক বাক্য
  4. ইচ্ছাবাচক বাক্য
  5. আবেগবাচক বাক্য
  6. সন্দেহবাচক বাক্য
  7. শর্তসাপেক্ষ বাক্য
অর্থ অনুযায়ী বাক্যকে সাতটি শ্রেণীতে ভাগ করা যায়, যথা-  নির্দেশক বাক্য প্রশ্নবোধক বাক্য অনুজ্ঞাবাচক বাক্য ইচ্ছাবাচক বাক্য আবেগবাচক বাক্য সন্দেহবাচক বাক্য শর্তসাপেক্ষ বাক্য

নির্দেশক (Indicative or Assertive) বাক্য :-

সংজ্ঞা: যে বাক্যের দ্বারা কোন বিষয় বর্ণনা করা হয় অথবা কোন তথ্য বা সংবাদ স্বীকার বা অস্বীকার করা হয়, তাকে বলা হয় নির্দেশক বা নির্দেশাত্মক বাক্য।
এই বাক্যের শেষ হয় পূর্ণচ্ছেদ বা দাঁড়ি (।) দ্বারা। যেমন-
ক. সত্যবাদীকে সকলেই বিশ্বাস করে।
খ. শরীরটা আজ ভালো নেই।

নির্দেশক বাক্য দু'রকমের হয়- (১). সদর্থক বা ইতিবাচক বা হ্যাঁ-বাচক এবং (২). নেতিবাচক বা নঙর্থক বাক্য।

সদর্থক বা ইতিবাচক (affirmative) বাক্য :

সংজ্ঞা: যে নির্দেশক বাক্যে কোন ঘটনা বাক তথ্য বা সংবাদ বা অস্তিত্ব বা স্বীকার করা হয় বা মেনে নেওয়া হয় তাকে বলে ইতিবাচক বাক্য। যেমন-
ক. দোকান বন্ধ হয়ে গেছে।
খ. আমি ভাত খেতে ভালোবাসি।

নঙ্গর্থক বা নেতিবাচক (negative) বাক্য :

সংজ্ঞা: যে নির্দেশক বাক্যে কোন ঘটনা বা তথ্য বা সংবাদ বা অস্তিত্ব বা কোন বিষয় অস্বীকার করা হয় বা সে সম্বন্ধে আপত্তি করা হয়, কাকে বলে নেতিবাচক বাক্য । যেমন-
ক. মিথ্যাবাদীকে কেউ বিশ্বাস করে না।
খ. আমি আজ চলে যাচ্ছি না।
br />

প্রশ্নবোধক (interrogative) বাক্য :-

সংজ্ঞা: যে বাক্যে কোনো ঘটনা বা ভাব বা অবস্থা সম্পর্কে কোন কিছু জানতে চেয়ে প্রশ্ন করা হয় তাকে বলে প্রশ্নবোধক বা প্রশ্নোত্মক বাক্য।
 এই জাতীয় বাক্য সাধারণত শেষ হয় প্রশ্ন চিহ্ন বা জিজ্ঞাসা চিহ্ন ( ?) দ্বারা । এই জাতীয় বাক্য প্রস্তুত করতে গেলে সাধারণত কতকগুলি প্রশ্নবোধক বিশেষণ সর্বনাম বা অব্যয় পদ ব্যবহার করতে হয়। যেমন - কি, কী, কেন, কোন, কোথায়, কখন, কবে, কোথা থেকে, কাকে ইত্যাদি। উদাহরণ- এত রাতে কোথায় চললে? সোহেল কি ঘুমাচ্ছে? আবার এইসব প্রশ্নবোধক পদ ব্যবহার না করেও প্রশ্নবোধক বাক্য তৈরি করা যেতে পারে। যেমন-
ক. আজ আবার এসেছে?
খ. বাবার কথা শুনছ না?

প্রশ্নবোধক বাক্য দু রকমের হতে পারে- (১). হ্যাঁ-না প্রশ্নবোধক। (২). বস্তুগত প্রশ্নবোধক।

হ্যাঁ-না প্রশ্নবোধক বাক্য :

সংজ্ঞা: যে প্রশ্নবোধক বাক্যে উত্তর 'হ্যাঁ' বা 'না' হয়, তা-ই হ্যাঁ-না প্রশ্নবোধক বাক্য। যেমন-
ক. একেই কি বলে সভ্যতা?
খ. তুমি যাবে কি?

বস্তুগত প্রশ্নবোধক বাক্য :

সংজ্ঞা: যে প্রশ্নবোধক বাক্যের উত্তর 'হ্যাঁ' বা 'না' দিয়ে দেওয়া সম্ভব নয়, এক বা একাধিক শব্দ বা বাক্যের প্রয়োজন হয় সেক্ষেত্রে, তাকে বস্তুগত প্রশ্নবোধক বাক্য বলে। যেমন-
ক. তুমি কি খাবে?
খ. কেন দেশের এই দুরবস্থা?

নোট: এই ধরনের প্রশ্নবোধক বাক্যে কি, কেন, কখন, কোথায়, কিভাবে ইত্যাদি শব্দ বসিয়ে প্রশ্ন করা হয়।

অনুজ্ঞাবাচক (Imperative) বাক্য :-

সংজ্ঞা: যে বাক্যে শ্রোতাকে কোন কাজ করতে আদেশ, উপদেশ, অনুরোধ, উপরোধ, অনুনয়, নির্দেশ, নিষেধ ইত্যাদির কোন একটি জানানো হয়, তাকে অনুজ্ঞাবাচক বাক্য বলে। যেমন- ক. এক্ষুনি সেখানে যাও।
খ. দয়া করে আমাকে ভিতরে ঢুকতে দিন। সদা সত্য কথা বলিবে।

অনুজ্ঞাবাচক বাক্য দুই রকমের হয় (১). বর্তমান অনুজ্ঞা। (২). ভবিষ্যৎ অনুজ্ঞা।

বর্তমান অনুজ্ঞা (Present Imperative) :

সংজ্ঞা: যে অনুপরা বাচক বাক্যের ক্রিয়া বর্তমান কালকে নির্দেশ করে, তাকে বর্তমান অনুজ্ঞাবাচক বাক্য বলে। যেমন-
ক. তুমি একটা গান গাও তো।
খ. তোরা খেতে আয়।

ভবিষ্যৎ অনুজ্ঞা (Future Imperative) :

সংজ্ঞা: যে অনুজ্ঞাবাচক বাক্যের ক্রিয়া ভবিষ্যৎ কালকে নির্দেশ করে, তাকে ভবিষ্যৎ অনুজ্ঞাবাচক বাক্য বলে। যেমন-
ক. কাল একবার ওখানে যেও।
খ. সময় নষ্ট করো না।

ইচ্ছাবাচক (Optative) বাক্য :-

সংজ্ঞা: যে বাক্যে বক্তার মনের ইচ্ছা বা আকাঙ্ক্ষা প্রকাশ পায় বা কোন কিছু প্রার্থনা বা কামনা করা বোঝায়, তাকে ইচ্ছা বাচক বা প্রার্থনাসূচক বাক্য বলা হয়। যেমন-
ক. ইস! যদি পাখির মত টাকা পেতাম।
খ. তুমি দীর্ঘায়ু হও।

আবেগবাচক (Interjective) বাক্য :-

সংজ্ঞা: যে বাক্যে হর্ষ, শোক, ক্রোধ, উৎসাহ, ভয়, বিস্ময়, বিরক্তি, দুঃখ, ঘৃণা - ইত্যাদি কোন একটি আবেগ প্রকাশিত হয়, তাকে আবেগবাচক বা বিস্ময়বোধক বাক্য বলে। বিস্ময় সূচক চিহ্ন ( !) দিয়েই সাধারণত এই বাক্য সমাপ্ত হয়। যেমন- উ
ক. কি গরম!
খ. কি সুন্দর খেলা দেখলাম!

সন্দেহবাচক (Dubitated) বাক্য :-

সংজ্ঞা: বুঝি, বোধ হয়, যেন, হয়তো ইত্যাদি এক বা একাধিক শব্দের ব্যবহারে বক্তার মনের সন্দেহ বা সংশয় বা অনুমান প্রকাশিত হয় যে বাক্যে, তাকেই সন্দেহবাচক বা সংশয়বাচক বাক্য বলে। যেমন-
ক. তোরা বুঝিয়ে বাড়ি ছেড়ে দিচ্ছিস।
খ. হয়তো বিমল আসিতে পারে।

শর্তসাপেক্ষ (Conditional) বাক্য :-

সংজ্ঞা: যে বাক্যে কার্যের কোন কারণ বা শর্তের উল্লেখ থাকে অথবা একটি ঘটনা বা অবস্থার উপর অন্য একটি ঘটনা বা অবস্থার নির্ভরশীলতা ব্যক্ত হয়, তাকে বলে শর্তসাপেক্ষ বা কার্যকারণাত্মক বাক্য। যেমন-
ক. বৃষ্টি হলে ফসল ভালো হবে।
খ. মন দিয়ে না পড়লে সাফল্য আসবে না।