মডেল অ্যাক্টিভিটি টাস্ক বাংলা দশম শ্রেণি । Class 10 Bengali Model Activity Task

তপনের মনে হয় আজ যেন তার জীবনের সবচেয়ে দুঃখের দিন - তপনের এমন মনে হওয়ার কারণ ?

উত্তর
তপনের সারা দুপুর বসে লেখ গল্পটা তার ছোট মাসি একরকম জোর করে তার মেসোকে দেখায় ছোট মেসো সেই লেখার প্রশংসা করেন। কিন্তু পাশাপাশি এ কথা বলেন যে গল্পটার সংশোধন দরকার। কারণ সন্ধ্যাতারা পত্রিকায় সেটি ছাপানো হবে। সন্ধ্যাতারা পত্রিকার সত্যিই তার লেখা প্রকাশিত হয়। ছাপার অক্ষরে নিজের নাম দেখে তপন এক অদ্ভুত আনন্দ অনুভব করে। কিন্তু লেখাটা পড়তে গিয়ে শেষ ছাপার অক্ষর লেখার সঙ্গে নিজের লেখাটার কোন মিল পাচ্ছিল না। পুরো লেখাটা আগাগোড়া তার মেয়ে সমস্যা সংশোধন করে দিয়েছিলেন। দুঃখ লজ্জায় অপমানে তপন ভেঙে পড়ে।


মডেল অ্যাক্টিভিটি টাস্ক বাংলা দশম শ্রেণি


আমাদের ইতিহাস নেই - এই উপলদ্ধির মর্মাথ লেখো ?

উত্তর
ইতিহাস হলো প্রকৃতপক্ষে কোন জাতির এবং সভ্যতার আত্মবিকাশের পথ ও পর্যায়ের কাহিনী।তাই অতীতের উপর দাঁড়িয়ে যখন বর্তমানকে তৈরি করা যায় । তখন তা যথাযথ হয়।দুর্ভাগ্যের বিষয় এই যে আমাদের প্রকৃত ইতিহাস থেকে আমরা বিচ্ছিন্ন হয়েছে। শঙ্খ ঘোষ যখন তার আয় আরো বেঁধে বেঁধে থাকি কবিতায় যখন আমাদের ইতিহাস না থাকার কথা বলেন,শুধু ইতিহাস না থাকার নয় বিকৃত এবং ভান্ত ইতিহাসের মধ্যে পড়ে দিকভ্রান্ত মানুষের কোথাও কবি বলেছেন। পৃথিবীর ইতিহাস যারা যখন ক্ষমতায় থেকেছেইতিহাসকে তারা তখন নিজেদের মতো করে নিজের স্বার্থে পরিচালিত করেছে। আমাদের চোখ মুখ ঢাকা আমরা ভিখারি বারো মাস। ইতিহাস বিচ্ছিন্ন জাতি আসলে শীকর বিচ্ছিন্ন জাতি।অতিত থেকে দূরে সরে গিয়ে বর্তমান সঙ্কটে তাই পরিত্রাণের পথ খুঁজে পাওয়া ক্রমশই অসম্ভব হয়ে ওঠে। সাম্রাজ্যবাদ ধর্মান্তর মত অসুখ সমাজকে রক্তাক্ত করেছে আমাদের পথ নেই কোন আমাদের ঘর গেছে উড়ে আমাদের শিশুরা সব ছড়ানো রয়েছে কাছে দূরে এখানে ভিখারি হয়ে বেঁচে থাকাটা মানুষের নিয়তি।কোন পথ দেখতে না পাওয়ার সময় হাতে হাত রেখে এই বেঁচে থাকাটা অত্যন্ত জরুরি।

আরোও পড়ুন : Madhyamik English activity 3 | dialogue within 100 words between the Mountain and the Squirrel poem fable


এল মানুষ ধরার দল তাদের আগমনের আগে আফ্রিকায় স্বরূপ কেমন ছিল?

উত্তর
রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের আফ্রিকা কবিতাটি আফ্রিকাকে ইতিহাসের পটভূমিতে রেখে কবিতার রূপ ও রূপান্তরের ছবি কে তুলে ধরেছেন। বিশ্ব সৃষ্টির প্রথম পর্বে স্রষ্ঠা যখন নিজের প্রতি অসন্তোষে নতুন সৃষ্টিকে বারবার বিধ্বস্ত করছিল সেই সময়। রুদ্র সমুদ্রের বাহু প্রাচী ধরিত্রীর বুক থেকে ছিনিয়ে নিয়ে গেলো তোমাকে আফ্রিকা। সৃষ্টির সেই প্রথম লগ্ন থেকে আফ্রিকা ছিল আদিম অরণ্য পরিবৃত্ত।কবির কথায় বিভীষিকায় যেন হয়ে উঠেছিল এই আফ্রিকার মহিমা যা দিয়ে সে আসলে নিজের যাবতীয় সংখ্যা কে পরাজিত করতে চাইছিল। সৃষ্টির সেই প্রথম যুগে আফ্রিকা ছিল বাকি পৃথিবীর কাছে উপেক্ষার পাত্র কাল ঘোমটার নিচে অপরিচিত ছিল তোমার মানব রূপ উন্নত বিশ্বে আফ্রিকাকে প্রতিষ্ঠান করতে চাইছিল আগম্য এবং ভয়াবহতার এক অন্ধকার মহাদেশ।কাল ঘন্টা হিসাবে উপেক্ষার অবমাননায় ছিল আফ্রিকার একমাত্র কামনা।


সব মিলিয়ে লেখালিখি রীতিমতো ছোটোখাটো একটা অনুষ্ঠান - প্রবন্ধ অনুসারে মন্তব্যটি বিশ্লেষণ করো ?

উত্তর
শৈশবে লেখক এর লেখাপড়া সঙ্গী ছিল বাঁশের কলম এবং কাগজ ছিল কলাপাতা।বাড়ির কাঠের উনুনে কড়াই এর নিচে জমে যাওয়া কালি লাউপাতা দিয়ে ঘসে একটা পাথরের বাটি তে জলে বলে নেয়া হতো। বাঁশের কলম হারিয়ে খাগের কলম পালকের কলম প্রচলিত হতে থাকে। বাজারে কাজল কালো সুলেখা কালের দেওয়াতে বোতলে বিক্রি হতে থাকে। এরপর বাজারে আসলে পেন। তারপরে বিজ্ঞানের সৃষ্টি কম্পিউটার যা মানুষকে যন্ত্র মনিবে পরিণত করে। বাজার থেকে সব ধরনের পেন কালি হারিয়ে যেতে থাকলো। লেখক সাংবাদিক হিসেবে লেখালেখি কাজে যুক্ত ছিলেন।লেখক অফিসে কোন দিনকে কলম নিয়ে যেতে ভুলে গেলে বিপদে পড়ে তিনি কারণ কারো কাছে কলম নেই।কম্পিউটারের আধিপত্যকে মেনে নিলেও কলমের সঙ্গে লেখক এর সব জীবনের স্মৃতি হারিয়ে যেতে বসেছে যা তার মনকে ভারাক্রান্ত করেছে।

সব চূর্ণ হয়ে গেল জ্বলে গেল আগুনে- কবিতা অনুসারে পরিস্থিতির বিববরণ দাও

উত্তর
অসুখী একজন কবিতার উল্লেখিত অংশে বিপ্লবী তার প্রিয় যে বাড়িতেই থাকতেন সেই বারান্দা যার ঝুলন্ত বিছানায় তিনি ঘুমিয়ে থাকবেন প্রিয় গোলাপের গাছ ছড়ানো করতোলার মতো পাতা চিমনি প্রাচীন জলতরঙ্গ এই সবকিছু চূর্ণ হয়ে যায়। বিপ্লবের পথ চলা সংগ্রামের দুর্গম পথে তাই যুদ্ধ যেখানে অনিবার্য। যুদ্ধ আসে রক্তের আগ্নেয় পাহাড়ের মত। অর্থ ধ্বংস ও রক্তাক্ত যুদ্ধ অনিবার্য ফলস্রুতি। সে আগুন অনেক কিছু কে ধ্বংস করে ধ্যানমগ্ন দেবতার জন্য হন্। অর্থাৎ আগুন লাগে মানুষের দীর্ঘদিনের লালিত বিশ্বাস ও। তারপরে যুদ্ধের আগুনে ছাই হয়ে যায় সমস্ত স্নারক।বিপ্লবের যা কিছু প্রিয় এবং একান্ত ভাবে নিজস্ব সেসব চূর্ণ হয়ে যায় জ্বলে যায় । এই যুদ্ধ যেন মানবিক মিনিস্টার ধ্বংস নিশ্চিত করে দিয়ে যায়। আগুনের তাণ্ডবে কাঠ-কয়লা দোমড়ানো লোহা ইত্যাদি সমস্ত কিছু পুড়ে নিঃশেষ হয়ে যায়।

অনুক্ত কর্তা - বলতে কি বুঝ?

উত্তর কর্ম ও ভাববাচ্যের কর্তা কে অনুক্ত কর্তা বলে।

অ- কারক পদ কয় প্রকার ও কি কি?

উত্তর দুই প্রকার, । যথা(i)-সম্বন্ধ পদ, (ii)- সম্বোধন পদ।

তির্যক বিভক্তি কাকে বলে?

উত্তর -- কোন বিভক্তি একাধিক কারকে ব্যবহার হলে তাকে তির্যক বিভক্তি বলে।

Post a Comment

0 Comments