সপ্তম শ্রেণীর ইতিহাস মডেল অ্যাক্টিভিটি টাস্ক পার্ট 4 । Class 7 History Model Activity Task Part 4 New. 2021 । সেন রাজারা কি সাহিত্যের পৃষ্ঠপোষক ......

সপ্তম শ্রেণীর ইতিহাস মডেল অ্যাক্টিভিটি টাস্ক 2021 এর পার্ট 4 এর প্রশ্ন এবং উত্তর নিয়ে আজকে আমরা আলোচনা করব চলো শুরু করা যাক ।


সপ্তম শ্রেণীর ইতিহাস মডেল অ্যাক্টিভিটি টাস্ক পার্ট 4


সপ্তম শ্রেণীর ইতিহাস নতুন 2021 এর মডেল অ্যাক্টিভিটি টাস্ক


১. ক স্তম্ভের সাথে খ স্তম্ভ মিলিয়ে লেখো:

উত্তর -

ক স্তম্ভ খ স্তম্ভ
হর্ষচরিত বাণভট্ট
গৌড়বহো বাক্‌পতিরাজ
কিতাব অল হিন্দ অল বিরুনি


২. বেমানান শব্দটির নিচে দাগ দাও

(ক) বিজয়ালয়, দস্তিদুর্গ, প্রথম রাজরাজ, প্রথম রাজেন্দ্র


উত্তর - দস্তিদুর্গ ।


(খ) বরেন্দ্র, হরিকেল, কনৌজ, গৌড়


উত্তর - কনৌজ ।

(গ) হলায়ুধ, জয়দেব, গোবর্ধন, উমাপতিধর


উত্তর
- হলায়ুধ ।

৩. সংক্ষেপে (৩০- ৫০টি শব্দের মধ্যে) উত্তর দাও :

(ক) পাল-সেন যুগে কেমন ভাবে কর আদায় করা হত?

উত্তর - ভূমিকা : পাল ও সেনযুগে রাজারা বিভিন্ন ধরনের কর সংগ্রহ করতেন।


1. কৃষি কর : রাজারা উৎপন্ন ফসলের এক-ষষ্ঠাংশ (১/৬ ভাগ) কৃষকদের কাছ থেকে কর নিতেন। তাঁরা নিজেদের ভোগের জন্য ফুল, ফল, কাঠ ও প্রজাদের কাছ থেকে কর হিসাবে আদায় করতেন।

2. বাণিজ্য কর : বণিকরা তাদের ব্যাবসাবাণিজ্য করার জন্য রাজাকে কর দিত।

3. অন্যান্য কর : এছাড়াও প্রজারা নিজেদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করার জন্য রাজাকে কর দিত। সমগ্র গ্রামের উপরেও কর দিতে হতো গ্রামবাসীদের । হাট ও খেয়াঘাটের , উপরে কর চাপানো হতো।


(খ) সেন রাজারা কি সাহিত্যের পৃষ্ঠপোষক ছিলেন?


উত্তর - সেন যুগে লক্ষ্মণসেনের রাজসভার কবি জয়দেব সবচেয়ে বিখ্যাত সাহিত্যিক। তাঁর গীতগোবিন্দম্ কাব্যের বিষয় ছিলো রাধা-কৃষ্ণের প্রেমের কাহিনি। লক্ষ্মণসেনের রাজসভার আর এক কবি ধোয়ী লিখেছিলেন পবনদূত কাব্য। এ যুগের আরো তিনজন কবি ছিলেন গোবর্ধন, উমাপতিধর এবং শরণ। এই পাঁচজন কবি একসঙ্গে লক্ষ্মণসেনের রাজসভার পঞ্চরত্ন ছিলেন। ত্রয়োদশ শতকের গোড়ায় কবি শ্রীধর দাস কর্তৃক সংকলিত সদুক্তিকর্ণামৃত গ্রন্থে বিভিন্ন কবিদের লেখা কবিতা স্থান পেয়েছে।


সেন যুগের ব্রাহ্মণ্যধর্মী কঠোর অনুশাসনের সঙ্গে সাহিত্যেরও যোগ ছিল। রাজা বল্লালসেন এবং রাজা লক্ষ্মণসেন দুজনেই স্মৃতিশাস্ত্র লিখেছিলেন। বল্লালসেনের লেখা চারটে বইয়ের মধ্যে দানসাগর এবং অদ্ভুতসাগর বই দুটি পাওয়া গেছে। লক্ষ্মণসেনের মন্ত্রী হলায়ুধ বৈদিক নিয়ম বিষয়ে ব্রাহ্বাণসর্বস্ব নামে একটা বই লিখেছিলেন। অভিধানপ্রণেতা সর্বানন্দ এবং গণিতজ্ঞ এবং জ্যোতির্বিদ শ্রীনিবাস ছিলেন সেন যুগের আরো দুজন লেখক ।


৪. নিজের ভাষায় লেখো (১০০-১২০ টি শব্দের মধ্যে) :

বখতিয়ার খলজির বাংলা আক্রমণের পর বাংলাতে কি কি পরিবর্তন ঘটেছিল?


উত্তর -
আনুমানিক ১২০৪ খ্রিস্টাব্দের শেষ বা ১২০৫ খ্রিস্টাব্দের প্রথম দিকে তুর্কি সেনাপতি বখতিয়ার খলজি বাংলার নদীয়া দখল করেছিলেন । সেই থেকে বাংলায় তুর্কি শাসন শুরু হয়েছিল । বখতিয়ার খলজি নিজের নতুন রাজ্যকে কয়েকটি ভাগে ভাগ করে প্রত্যেক ভাগের জন্য একজন করে । শাসনকর্তা নিযুক্ত করেন । এইসব শাসনকর্তারা ছিলেন তার সেনাপতি । বখতিয়ার খলজি লখনৌতিতে মসজিদ, মাদ্রাসা এবং সুফী সাধকদের আস্তানা তৈরি করে দেন । লখনৌতি রাজ্যের সীমানা উত্তরে দিনাজপুর জেলার দেবকোট থেকে রংপুর শহর দক্ষিণে পদ্মা নদী, পূর্বে তিস্তা ও করতোয়া নদী এবং পশ্চিমে বখতিয়ার খলজি অধিকৃত বিহার পর্যন্ত বিস্তৃত ছিল । এরপর খলজি তিব্বত আক্রমণ করে রাজ্যবিস্তার করার চেষ্টা করেন । কিন্তু সেই চেষ্টা সফল হয়নি ।