সপ্তম শ্রেণীর ইতিহাস মডেল অ্যাক্টিভিটি টাস্ক পার্ট 5 । Class 7 History Model Activity Task Part 5 New. 2021 । ইকতা ব্যবস্থা কী ?

সপ্তম শ্রেণীর ইতিহাস মডেল অ্যাক্টিভিটি টাস্ক 2021 এর পার্ট 5 এর প্রশ্ন এবং উত্তর নিয়ে আজকে আমরা আলোচনা করব চলো শুরু করা যাক ।


সপ্তম শ্রেণীর ইতিহাস মডেল অ্যাক্টিভিটি টাস্ক পার্ট 5

সপ্তম শ্রেণীর ইতিহাস নতুন 2021 এর মডেল অ্যাক্টিভিটি টাস্ক পার্ট 5


১. ক স্তম্ভের সাথে ‘খ’ স্তম্ভ মেলাও


উত্তর -

 
ক স্তম্ভখ স্তম্ভ
১.১. খলিফার অনুমোদনগ) ইলতুৎমিশ
১.২. সিজদা ও পাইবসক) গিয়াসউদ্দিন বলবন
১.৩. বাজারদর নিয়ন্ত্রণঘ) আলাউদ্দিন খলজি
১.৪. আমুক্তমাল্যদখ) কৃষ্ণদেব রায়


২. শূন্যস্থান পূরণ করো :

২.১ বন্দেগান-ইচিহলগানির সদস্য ছিলেন সুলতান____________।

উত্তর - গিয়াসউদ্দিন বলবন

২.২ বাংলার প্রথম স্বাধীন সুলতান ছিলেন________।

উত্তর - শামসদ্দিন ইলিয়াস শাহ

২.৩ পোর্তুগিজ পর্যটক__________বিজয়নগর পরিভ্রমন করেন।

উত্তর - পেজ

২.৪ বিজয়নগর পরাজিত হয়েছিল ________ যুদ্ধে ।

উত্তর - বানিহাটি বা তালিকটার

৩. সংক্ষেপে উত্তর দাও (৩০-৫০ টি শব্দ) :

৩.১. ইকতা ব্যবস্থা কী ?


উত্তর - দিল্লির যে সব রাজ্য জয় করতেন সুলতানরা সেগুলিকে এক একটি প্রদেশ ধরে নেওয়া হতো। এই দেশ গুলোকে বলা হয় ইকতা। ইকতা যাদের দেওয়া হয়তো তাদের বলা হতো ইকতাদার। ইকতাদার নিজ নিজ এলাকায় সরকারের প্রাপ্য রাজস্ব আদায় ও আইনশৃঙ্খলা রক্ষার দায়িত্ব পালন করতো। ইকতাদাররা রাজস্বের একাংশ দিয়ে একদল সেনাবাহিনী পোষণ করতেন এবং সুলতানের প্রয়োজনে তা সরবরাহ করতো।


৩.২. খলজি বিপ্লব বলতে কী বোঝ?


উত্তর - ১২৯০ খ্রিস্টাব্দে জালাল উদ্দিন ফিরোজ খলজি বলবনের বংশধরদের ক্ষমতা থেকে সরিয়ে দিয়ে সুলতান হন। এই ঘটনাকে 'খলজি বিপ্লব' বলা হয়। এর ফলে তুর্কি অভিজাত্যের ক্ষমতা চলে যায়। তার বদলে খলজি তুর্কি ও হিন্দুস্থানিদের ক্ষমতা বেড়ে গিয়েছিল।

৪. নিজের ভাষায় লেখো (১০০-১২০ টি শব্দ) :

কৃষ্ণোদেব রায়কে কেন বিজয়নগরের শ্রেষ্ঠ শাসক বলা হয়?


উত্তর - তুলুভ বংশের বিজয়নগরের বিখ্যাত শাসক ছিলেন কৃষ্ণদেব রায়। তাকে শ্রেষ্ঠ শাসক বলার কারণ গুলি হল-

1. তার রাজত্বকালে বিজয়নগরের গৌরব সবচেয়ে বেড়েছিল এবং রাজ্যের সীমানা ও বহুদূর বিস্তৃত হয়েছিল।

2. তিনি অভ্যন্তরীণ এবং বৈদেশিক বাণিজ্যের প্রসার ঘটিয়ে ছিলেন।

3. এছাড়া শিল্প সাহিত্য, সংগীত দর্শন শাস্ত্রের উন্নতি টার সময় লক্ষ্য করা যায়। কৃষ্ণদেব রায় নিজেও একজন সাহিত্যিক ছিলেন। তেলেগু ভাষায় লেখা আমুক্তমাল্যদ গ্রন্থে তিনি রাজার কর্তব্যের কথা লিখেছেন।

4. পর্তুগিজ পর্যটক পেজ রাজা কৃষ্ণদেব রায়ের প্রশংসা করে বলেছেন, রাজাদের মধ্যে তিনি সর্বাপেক্ষা পন্ডিত এবং সর্বোত্তম একজন মহান শাসক এবং সুবিচারক, সাহসী ও সর্বগুণান্বিতা"।