ষষ্ঠ শ্রেণীর বাংলা মডেল অ্যাক্টিভিটি টাস্ক পার্ট 2 । Class 6 Bengali Model Activity Task Part 2 New. 2022 । বিভীষণ মাস্টারমশাই পাখি দেখার ....

ষষ্ঠ শ্রেণীর বাংলা মডেল অ্যাক্টিভিটি টাস্ক 2022 February এর পার্ট 2 এর প্রশ্ন এবং উত্তর নিয়ে আজকে আমরা আলোচনা করব চলো শুরু করা যাক ।



ষষ্ঠ শ্রেণীর বাংলা মডেল অ্যাক্টিভিটি টাস্ক পার্ট 2


ষষ্ঠ শ্রেণীর বাংলা নতুন 2022 February এর মডেল অ্যাক্টিভিটি টাস্ক পার্ট 2



১. ঠিক উত্তরটি বেছে নিয়ে লেখো :

১.১ শ্যামল গঙ্গোপাধ্যায়ের জন্ম—

(ক) ১৯৩৩ সালে
(খ) ১৯৪৭ সালে
(গ) ১৯৬১ সালে
(ঘ) ১৯৬৯ সালে

উত্তর - ১৯৩৩ সালে

১.২ মাস্টারমশাই বিভীষণ দাশ যে পাখির কথা বলছিলেন—

(ক) শঙ্খচিল
(খ) এমু
(গ) বাজ
(ঘ) বক

উত্তর - এমু

১.৩ শংকরের স্বপ্নে দেখা এমুপাখি যে গাছের ডালে এসে বসেছিল—

ক) নারকেল
(খ) সুপুরি
(গ) সবেদা
(ঘ) তাল

উত্তর - সবেদা

২. নীচের প্রশ্নগুলির একটি বাক্যে উত্তর দাও :

২.১ অভিমন্যু সেনাপতি কে?

উত্তর - শঙ্করের বাবা হলেন অভিমন্যু সেনাপতি।

২.২ শংকর কোন্ স্কুলে পড়ে?

উত্তর - আকন্দবাড়ী স্কুলে পড়ে শঙ্কর ।

২.৩ ‘বলি এটা কি পঞ্চানন অপেরা পেয়েছ?’—কে একথা বলেছেন?

উত্তর - প্রশ্নে উধৃত অংশটি আমাদের পাঠ্য শ্যামল গঙ্গোপাধ্যায় এর লেখা 'সেনাপতি শংকর' গল্পের অংশ, উধৃত উক্তিটি আকন্দবাড়ি স্কুল এর প্রকৃতি-বিজ্ঞান এর শিক্ষক বিভীষণ দাশ বলেছিলেন।

৩. নীচের প্রশ্নগুলির সংক্ষিপ্ত উত্তর দাও :

৩.১ ‘চমকে উঠল ছেলেটি।'—কে চমকে উঠেছে? তার চমকে ওঠার কারণ কী?


উত্তর - প্রশ্নে উধৃত অংশটি আমাদের পাঠ্য বিষয় শ্যামল গঙ্গোপাধ্যায়ের লেখা 'সেনাপতি শংকর' গল্পটি থেকে নেওয়া, এখানে শংকর চমকে উঠেছে।


চমকে উঠার কারণ:- তার চমকে ওঠার কারণ হল আকন্দবাড়ী স্কুলের পঞ্চম শ্রেণীর প্রকৃতি বিজ্ঞানের ক্লাস এ বিভীষণ দাশ মাস্টারমশাই যখন এমু পাখির কথা বর্ণনা করছিলেন। তখন শংকর স্কুল বাড়ির জানালা দিয়ে বাইরের দিকে তাকিয়ে আনমনা হয়ে পড়েছিল। সে দেখছিল নারকেল গাছের মাথার উপর দিয়ে ডানা মেলে শঙ্খচিল ভাসছে। তখন সে রাতে স্বপ্নের কথা মনে করছিলো যে সে এমন ভাবে ভেসে বেড়াচ্ছিল। ডানার বদলে দুহাতে বাতাস কেটে যেন শঙ্খচিল দলের মতো এগিয়ে যাচ্ছিল, এমন সময় বিভীষণ দাশ মাস্টারমশাই এর চিৎকারে শংকর চমকে উঠেছিল।


৩.২ ‘সারা ক্লাস হাসিতে ফেটে পড়ল।'—সকলে হেসে উঠেছিল কেন?


উত্তর - প্রশ্নে উধৃত অংশটি আমাদের পাঠ্য শ্যামল গঙ্গোপাধ্যায়ের লেখা '‘সেনাপতি শংকর' গল্পটি থেকে নেওয়া। প্রকৃতি বিজ্ঞানের ক্লাসে শংকর আনমনা থাকায় মাস্টারমশাই বিভীষণ দাশ তাকে ধমক দিয়ে বলেন যে তিনি কী পড়াচ্ছেন? সেটা শংকর জানে কিনা? এ প্রশ্নের উত্তর এ বলে যে তিনি এমু পাখির কথা পড়াচ্ছেন তখন মাস্টার মশাই তাকে জানতে চায় যে,সে কোনদিন এমু পাখি দেখেছে কিনা এর উত্তবে সম্মতি জানিয়ে, সে বলে যে ঘোলপুকুরের বড় দীঘির পাড়ে সবেদা গাছের ডালে পাখি কে বসতে দেখেছে এই কথা শুনে সারা ক্লাস হাসিতে ফেটে পড়েছিল।


৩.৩ বিভীষণ মাস্টারমশাই পাখি দেখার জন্য কোন্ কোন্ সাবধানতা অবলম্বন করার কথা বলেছেন?


উত্তর - বিভীষণ মাস্টারমশাই পাখি দেখার জন্য যে যে সাবধানতা অবলম্বন করার কথা বলেছেন সে গুলি হলো সাবধানে পা টিপে টিপে চলতে হবে, জামা কাপড়ের রং শুকনো পাতার রং বা জলপাই রঙের হলে ভালো কারণ এই রং গাছের পাতা সঙ্গে মিশে থাকে বেগুনি রংযের জামা পরলে খুবই ভালো কারণ পাখি বেগুনি রং দেখতে পায় না।


৪. নীচের প্রশ্নটির উত্তর নিজের ভাষায় লেখো :

‘শংকরের বুকটা গর্বে ফুলে উঠল।'
—শংকরের গর্বিত হওয়ার কারণ ‘শংকর সেনাপতি’ রচনাংশ অনুসরণে বুঝিয়ে দাও।


উত্তর - শ্যামল গঙ্গোপাধ্যায় রচিত সেনাপতি শংকর গল্প থেকে উধৃত অংশটি নেওয়া হয়েছে। এখানে পাখি দেখার জন্য শিক্ষকের উপদেশ অনুযায়ী সাবধানে পা টিপে টিপে চলতে হবে, জামা কাপড়ের রং শুকনো পাতার রং বা জলপাই রঙের হলে ভালো কারণ এই রং গাছের পাতা সঙ্গে মিশে থাকে বেগুনি রংয়ের জামা ।


বিভীষণ মাস্টারমশাই শংকর কে বলেছিলেন গাছে গাছে ঘোরার কথা অনেক পাখি দেখার কথা, বলেছিলেন যত পারবে চোখ খোলা রেখে এই পৃথিবীর সব পাখি গাছপালা মেঘ আলো সব দেখতে, এটা শুনে শংকরের বুকটা গর্বে ফুলে উঠেছিল।